মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

পুরাকীর্তির সংক্ষিপ্ত বর্ণনা

কংস নারায়ণ মন্দির, তাহিরপুর 

রাজা কংস নারায়ণ রায় বাহাদুর ১৪৮০ খ্রিস্টাব্দে এ মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন। ভারতীয় উপমহাদেশের প্রথম শারদীয় দুর্গাপূজা উৎসব এখান থেকেই শুরু হয়ে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে। মা দুর্গার পৃথিবীতে প্রথম আবির্ভাব স্থল রাজশাহীর তাহেরপুর। মা দুর্গার জন্মস্বর্গে। ত্রেতাযুগে রাবণের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দশরথ পুত্র মহামতি রামমা দুর্গার অকালবোধন পূজা করেন। মা দুর্গা তাঁর পূজায় সন্তুষ্ট হয়ে রাবণবধের বর প্রদান করেন। মা দুর্গার বর পেয়ে রাম লঙ্কারাজ রাবণকে বধ করতেসক্ষম হন। ৮৮৭ বঙ্গাব্দে (১৪৮০ খ্রিস্টাব্দে) কংস নারায়ণের আহবানে মাদুর্গা সাধারণ্যে আবির্ভূত হন। এই সাহনে শরৎকালে আশ্বিন মাসের মহা ষষ্ঠীতিথিতে দেবীর বোধন হয়। ঐ পূজায় পৌরহিত্য করেছিলেন রাজপন্ডিত রমেশ শাস্ত্রী।মা দুর্গার প্রথম পদধূলিতে ধন্য এই পুণ্যভূমি। এই পুণ্যভূমি থেকেই শারদীয়দুর্গোৎসবের সূচনা।

পুঠিয়া রাজবাড়ি  

১৮৯৫ সালে মহারানী হেমন্তকুমারী দেবী ৪.৩১ একর জায়গার উপর রাজবাড়িটি নির্মাণ করেন।

দোল মন্দির, পুঠিয়া

পুঠিয়ার পাঁচআনি জমিদার ভুবেন্দ্রনারায়ণ রায় ১৭৭৮ খ্রিষ্টাব্দে মন্দিরটি নির্মাণ করেন। মন্দিরটিতে ১২৪ টি দরজা রয়েছে । 

বড় শিব মন্দির, পুঠিয়া

১৮২৫ খ্রিষ্টাব্দে রানী ভুবন মোহিনী দেবী এ মন্দিরটি নির্মাণ করেন।

বাঘা মসজিদ

ঐতিহাসিক এ মসজিদটি সুলতান নাসিরুদ্দিন নুসরত শাহ্‌ ১৫২৩ খ্রিষ্টাব্দে নির্মাণ করেন । 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter