মেনু নির্বাচন করুন

শাখার নামঃরাজস্ব , এসএ
নাগরিক সেবা

দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পদবীঃ রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর

ক্রঃ নং

সেবার নাম

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের সময়সীমা

নির্দিষ্ট সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান

০১।

কৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রদান অনুমোদন

কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত নীতিমালা, ১৯৯৭ মোতাবেক উপজেলা কমিটি কর্তৃক নির্বাচিত ভূমিহীনদের অনুকূলে বন্দোবস্ত নথি সৃজনক্রমে এ অফিসে প্রেরণ করা হয়। প্রাপ্ত নথি/নথিসমূহ পরবর্তী মাসিক কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটির সভায় উপস্থাপিত হয়। সৃজিত নথিতে কোন ত্রুটি না থাকলে জেলা কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটির সভায় অনুমোদিত হয়।

জেলা কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটির সভায় অনুমোদনের পর পরবর্তী ০৭ কার্য দিবসের মধ্যে সংশ্লিষ্ট উপজেলায় পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য নথি।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০২।

অকৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত প্রসত্মাব অনুমোদন

অকৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত নীতিমালা, ১৯৯৫ মোতাবেক অকৃষি খাস জমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান/ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান / সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত অনুমোদনক্রমে বন্দোবস্ত প্রদানের বিধান রাখা হয়েছে। ঐ সকল বন্দোবস্ত নথি উপজেলা নির্বাহী অফিসার হতে পাওয়ার পর নীতিমালা মোতাবেক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাঃ) যুক্তিসংগত সময়ে সরেজমিনে পরিদর্শন করেন। বন্দোবস্ত প্রদানে সরকারের কোন স্বার্থের হানি না হলে নথি চূড়ান্ত অনুমোদনের নিমিত্ত ভূমি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়।

নীতিমালায় এ সংক্রান্ত কোন সময় নির্ধারণ করা হয়নি। কোন ত্রুটি কিংবা কারো কোন আপত্তি না থাকলে দ্রুততার সাথে ভূমি মন্ত্রণালয়ে নথি প্রেরণ করা হয়। ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত হলে অত্রাফিসে কেস নথি গৃহীত হবার পরবর্তী ০৭ (সাত) কার্য দিবসের মধ্যে প্রয়োজনীয় কার্যক্রমের জন্য নথি সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসে প্রেরণ করা হয়।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৩।

বাজার ভিটি একসান লীজ

বাজার ভিটি একসনা লীজ নথি সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসে সৃজিত হয়। প্রকৃত ব্যবসায়ীর অনুকূলে ০.০০৫০ (আধা শতক) একর ভূমি একসনা ভিত্তিতে লীজ প্রদানের বিধান রয়েছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) / উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিশ্চিত হয়ে অনুমোদিত পেরিফেরি ভূক্ত বাজার ভিটি লীজের প্রস্তাব এ অফিসে প্রেরণ করেন।

এ বিষয়ে সরকারি কোন সময় নির্ধারণ করা নেই। কোন অভিযোগ কিংবা নথিতে কোন ত্রুটি না থাকলে ০৭ (সাত) দিনের মধ্যে নথি অনুমোদনক্রমে সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসে ফেরত দেওয়া হয়।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৪।

সায়রাত মহাল জলমহাল বালুমহাল ইজারা

২০ একরের উর্দ্ধের জলমহাল, ট্রানজিটমহাল ও যে কোন আকারের বালুমহাল এ কার্যালয় হতে ইজারা প্রদান করা হয়। দরপত্র প্রাপ্তির পর বালুমহাল সংক্রান্ত জেলা আমত্মঃ সংস্থা কমিটিতে পেশ করা হয়। এ কমিটি কর্তৃক অনুমোদিত হলে ভূমি মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়। জলমহাল ইজারা সংক্রান্ত বিষয়ে বিগত ৩ বৎসরের ইজারা মূল্যের গড় হতে ৫% অধিক হারে বিবেচ্য বৎসরের ইজারামূল্য নির্ধারণ করা হয়ে থাকে।

যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের পর নথিপত্র ফেরত পাবার পরবর্তী ০৭ (সাত) কার্য দিবসের মধ্যে ইজারামূল্য পরিশোধ সাপেক্ষে চুক্তিপত্র সম্পাদন করে ইজারাদারকে দখল বুঝিয়ে দেয়া হয়।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৫।

উচ্ছেদ মামলাঃ (সরকারি ভূমি উদ্ধার)

সরকারি ভূমির অবৈধ দখল উচ্ছেদের লক্ষ্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) হতে প্রস্তাব/নথি পাওয়া গেলে ৩ (তিন) কার্য দিবসের মধ্যে নথি পেশ করা হয়। সরকারি প্রচলিত নিয়মানুযায়ী ৭ দিনের সময় দিয়ে অবৈধ দখলকারকে নোটিশ প্রদান করা হয়। অতঃপর অবৈধ দখলকার/ স্থাপনা উচ্ছেদ/ অপসারণের নিমিত্ত আইনানুযায়ী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেয়া হয়।

পুলিশ ফোর্স প্রাপ্যতা ও সুবিধাজনক সময়ে।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৬।

বিভিন্ন প্রকার আপিল / আপত্তি

সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্তৃক গৃহীত কার্যক্রমের বিরুদ্ধে কোন আপিল/আপত্তি আবেদন পাওয়া গেলে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাঃ) এর আদালতে পক্ষদ্বয়ের শুনানীনান্তে এবং তাদের দাবির অনুকূলে প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্রাদি পর্যললোচনা করে রায় প্রদান করা হয়।

পক্ষদ্বয়ের উপস্থিতি এবং দাবির অনুকূলে প্রয়োজনীয় দাখিলকৃত দলিল দসত্মাবেজ পর্যালোচনায় ও শুনানীনান্তে ৭ কার্য দিবসের মধ্যে সিদ্ধান্ত প্রদান করা হয়।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৭।

এস.এ শাখার

অধীনে কর্মরত কর্মকর্তা/ কর্মচারীদের বিভিন্ন রকম সরকারি প্রাপ্য সুবিধাদি

এস.এ শাখার অধীনে কর্মরত কানুনগো, ইউনিয়ন ভূমি সহকারী/ উপসহকারী কর্মকর্তা, সার্ভেয়ার, জারীকারক ও এম.এল.এস.এস গণের টাইমস্কেল, দক্ষতাসীমা, পেনশন সহ সকল প্রশাসনিক কার্যাদি সরকারি নিয়ম নীতি অনুসরণে এ শাখা হতে সম্পাদিত হয়। উপজেলা ভূমি অফিস হতে এ সংক্রান্ত পত্র পাবার পর ৩ কার্যদিবসের মধ্যে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট পেশ করা হয়।

এ সংক্রান্ত কোন নির্ধারিত সময় নেই। তবে সরকারি বিধিবিধান অনুসরণে তা করা হচ্ছে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের অনুমোদনের পর পরবর্তী ৩ কার্য দিবসের মধ্যে আদেশ/মঞ্জুরীপত্র জারী করা হয়।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৮।

নথি/রেকর্ড

সংরক্ষণ

সরকারি খাস ভূমি স্থায়ী/অস্থায়ী বন্দোবস্ত সংক্রান্ত সকল প্রকার নথি এবং নামজারি জমাখারিজ সংক্রান্ত নথি উপজেলা ভূমি অফিসে সংরক্ষণ করা হয়।

এ সংক্রান্ত সকল তথ্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসে যোগাযোগ করে জেনে নেয়া যাবে।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।

০৯।

তথ্য, পরামর্শ ও অভিযোগ।

রাজস্ব বিষয়ক অথবা ভূমি সংক্রান্ত যে কোন ধরণের তথ্য, পরামর্শ, অভিযোগ, সমস্যা সরাসরি আরডিসি কিংবা শাখার প্রধান সহকারীর সাথে আলোচনা করে জেনে নেয়া যাবে।

তাৎক্ষণিক।

উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে

অবহিত করা।


শাখার নামঃসার্বিক , নেজারত
নাগরিক সেবা

জেলাপ্রশাসনের আয় ব্যয় এর হিসাব সংক্রন্ত কার্যাবলি সম্পাদন


শাখার নামঃব্যবসা ও বাণিজ্য
নাগরিক সেবা

 ইট ভাটা 

 জ্বালানী ও এলপিজি

 রুট পারমিট

 অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের আওতায় ডিলিং লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন

 অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক নিয়োগ

 আবাসিক হোটেল ও রেস্তোরার লাইসেন্স প্রদান, নবায়ন

 সার, খাদ্য, জ্বালানী তেল ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের বাজার দর মূল্য মনিটরিং

 পুরাতন কাপড় আমদানি


শাখার নামঃঅতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট , ট্রেজারী
নাগরিক সেবা

 

১।

এই জেলা ট্রেজারীতে ঢাকা হতে জুডিশিয়াল, নন-জুডিশিয়াল, বিশেষ আঠালো স্ট্যাম্পস, সার্ভিস স্ট্যাম্প, কোর্ট ফি, ফলিও ও ডেমি এনে সংরক্ষণ করা হয়। উক্ত স্ট্যাম্প, কোর্ট ফি, ফলিও, ডেমি ভেন্ডারদেরকে ট্রেজারীতে মজুদ সাপেক্ষে সরবরাহ করা হয়। সরবরাহের পূর্বে নির্ধারিত তারিখে সপ্তাহে একদিন রবিবার  সকাল ০৯.০০ টা হতে বেলা ১.০০ টা পর্যন্ত ভেন্ডারদের চাহিদার উল্লিখিত টাকার চালান পাশ করা হয় এবং চালানসমূহের টাকা বাংলাদেশ ব্যাংক, রাজশাহী শাখায় জমা দিতে হয়। অতপর চালান ও চাহিদাপত্র রেজিস্টারে এন্ট্রি এবং পরীক্ষা নিরীক্ষা অমেত্ম বাংলাদেশ ব্যাংকের জমাকৃত টাকার স্ক্রলের সাথে হিসাব যাচাই অমেত্ম সঠিক পাওয়া গেলে মালামাল ঐ সপ্তাহের মঙ্গলবারে ট্রেজারী হতে বের করা হয়  এবং মালামালগুলি  চাহিদাপত্র অনুযায়ী মিলিয়ে সপ্তাহে দু’দিন যথাক্রমে বুধবার ও বৃহস্পতিবার ট্রেজারী হতে উক্ত স্ট্যাম্পস্, ফলিও, কোর্ট ফি চাহিদা মোতাবেক জনস্বার্থে ভেন্ডারদেরকে সরবরাহ করা হয়।

২। 

এই জেলা ট্রেজারী হতে জিপিও, রাজশাহীকে রাজস্ব টিকিট, সাধারণ পোস্টাল খাম, নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প ট্রেজারীর মজুদ সাপেক্ষে সরবরাহ করা হয়। উক্ত রাজস্ব টিকিট সাধারণ পোস্টাল খাম, নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প সরবরাহের পূর্বে মালামালের চাহিদার উল্লিখিত টাকার চালান এ ট্রেজারীতে নির্ধারিত তারিখে সপ্তাহে এক’দিন অর্থাৎ রবিবার চালান পাশ করা হয় এবং বাংলাদেশ ব্যাংক, রাজশাহী শাখায় চালানের টাকা জমা দিতে হয় চালান ও চাহিদাপত্র রেজিস্টারে এন্ট্রি এবং পরীক্ষা নিরীক্ষা অমেত্ম মালামাল ট্রেজারী হতে বের করা হয়  এবং মালামালগুলি  চাহিদাপত্র অনুযায়ী বুধবার ও বৃহস্পতিবার দু’দিন চাহিদায় উল্লিখিত স্ট্যাম্পস্, রাজস্ব টিকিট, পোস্টাল খাম সরবরাহ করা হয়।

৩।

এ জেলা ট্রেজারী হতে জিপি ও এজিপিগণকে তাদের চাহিদা মোতাবেক ট্রেজারীতে মজুদ সাপেক্ষে কার্টিজ পেপার (ডেমি), ফলিও সরবরাহ করা হয়। উক্ত কার্টিজ পেপার (ডেমি) এবং ফলিও সরবরাহের পূর্বে এ ট্রেজারী থেকে চালান পাশ করে বাংলাদেশ ব্যাংক, রাজশাহী শাখায় টাকা জমা দিতে হয়। চালান পাশ সপ্তাহে এক’দিন রবিবার  করা হয়। চাহিদায় উল্লিখিত মালামাল সপ্তাহে দ’ুদিন অর্থাৎ যথাক্রমে বুধবার ও বৃহস্পতিবার সরবরাহ করা হয়।

৪।

এ ট্রেজারী হতে বিভিন্ন ব্যাংক ও প্রতিষ্ঠানকে বিশেষ আঠালো স্ট্যাম্প সরবরাহ করা হয়। উক্ত স্ট্যাম্পস্ সরবরাহের পূর্বে এ অফিস থেকে নির্ধারিত দিনে অর্থাৎ রবিবার চালান পাশ করা হয় এবং চালান পাশের পরের দিন অর্থাৎ সপ্তাহে দু’দিন যথাক্রমে বুধবার উক্ত স্ট্যাম্প ট্রেজারীর মজুদ সাপেক্ষে সরবরাহ করা হয়।

৫।

এ ট্রেজারী হতে বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারী অফিসসমূহে সার্ভিস টিকিট সরবরাহ করা হয়। সার্ভিস টিকিট সরবরাহের পূর্বে এ অফিস থেকে নির্ধারিত দিনে সপ্তাহে এক’দিন অর্থাৎ রবিবার চালান পাশ করা হয় এবং সপ্তাহে একদিন বৃহস্পতিবার ট্রেজারীর মজুদ সাপেক্ষে সার্ভিস টিকিট সরবরাহ দেয়া হয়।

৬।

এ জেলা ট্রেজারী অফিস হতে বীমা অফিসে বীমা স্ট্যাম্প সরবরাহ করা হয়। বীমা অফিসে স্ট্যাম্প সরবরাহের পূর্বে এ অফিস থেকে চালান পাশ করে দেয়া হয়। সপ্তাহে এক’দিন অর্থাৎ রবিবার  চালান পাশ করা হয় এবং চালানের টাকা বাংলাদেশ ব্যাংক, রাজশাহী শাখায় জমা দিতে হয়। বীমা অফিস যদি নগদ টাকার পরিবর্তে চেকে টাকা জমা দিতে চান তাহলে সেক্ষেত্রেও রবিবার চালান পাশ করা হয়।

৭।

 বি,জি প্রেস সহ বিভিন্ন দপ্তর/পরিদপ্তর/মন্ত্রণালয় হতে প্রাপ্ত বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্ন পত্রের সিলগালাকৃত ট্রাংক

ট্রেজারীতে সংরক্ষণ করা হয় এবং পরীক্ষার সময়সূচী অনুযায়ী স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানকে প্রশ্নপত্র সমূহ সরবরাহ করা হয় ।

বিঃ দ্রঃ

ট্রেজারী অফিসে স্ট্যাম্প সরবরাহ, চালান পাশ ও চালান জমাদান বিষয়ে কোন প্রকার সমস্যা দেখা দিলে তা ট্রেজারী শাখায় টেলিফোন নং- ৭৭২৬৫৪ তে ট্রেজারী অফিসারের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। ট্রেজারী অফিসার সমস্যা সমাধান না দিতে পারলে জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে ৭৭২০৫০ নং টেলিফোনে যোগাযোগ করতে পারবেন। সরকারী ছুটির দিনে কোন প্রকার চালান পাশ বা স্ট্যাম্প সরবরাহ করা হয়না।


শাখার নামঃঅতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট , জেএম
নাগরিক সেবা

জুডিসিয়েল মুন্সীখানা শাখার সিটিজেন চার্টারঃ

 

১। আগ্নেয়াস্ত্র লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়নঃ

(ক) নতুন একনলা ও দোনলা বন্দুক/রাইফেল-এর লাইসেন্স ইস্যুর জন্য আবেদন প্রাপ্তির পর তদমত্মক্রমে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুমিলস্না বরাবর প্রেরণ করা হয়। প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর ব্যক্তিগত শুনানী গ্রহণপূর্বক নতুন লাইসেন্স ইস্যু করা হয়। পিসত্মল/রিভলবার-এর লাইসেন্স প্রাপ্তির আবেদনের সাথে সাথে তদমত্মক্রমে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুমিলস্না বরাবর প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর লাইসেন্স প্রদানের অনুমতির জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়।

            (খ) লাইসেন্স নবায়নের ফি প্রদানপূর্বক নবায়নের জন্য আবেদন করলে সাথে সাথে নবায়ন করা হয়। 

২। বিস্ফোরক দ্রব্যের লাইসেন্স প্রদান ও নবায়নঃ

(ক) আবেদন প্রাপ্তির পর তা সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহে তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম লাইসেন্স প্রদান করা হয়।

            (খ) লাইসেন্স নবায়নের ফি প্রদানপূর্বক নবায়নের জন্য আবেদন করলে সাথে সাথে নবায়ন করা হয়।

৩। সিনেমা হলের লাইসেন্স প্রদান ও নবায়নঃ

(ক) আবেদন প্রাপ্তির সাথে সাথে সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহে তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম লাইসেন্স প্রদান করা হয়।

            (খ) লাইসেন্স নবায়নের ফি প্রদানপূর্বক নবায়নের জন্য আবেদন করলে সাথে সাথে নবায়ন করা হয়।

৪। সিএনজি ফিলিং স্টেশন ও পেট্রোল পাম্প স্থাপনের অনাপত্তি সনদ প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির সাথে সাথে সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহে তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম অনাপত্তি সনদ প্রদান করা হয়।

৫। খনিজ দ্রব্য (জ্বালানী তেল, গ্যাস ও অন্যান্য) বিক্রির অনাপত্তি সনদ প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির সাথে সাথে সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহে তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম অনাপত্তি সনদ প্রদান করা হয়।

 

৬। মেলা/বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদানঃ

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক ধার্যকৃত ফি দাখিলপূর্বক স্থানীয় চেম্বারের অনুমতিপত্র ও সংশিস্নষ্ট মাঠ কর্তৃপক্ষের চুক্তিনামাসহ আবেদন করলে সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহের নিকট তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর শর্ত সাপেক্ষে মেলা/বাণিজ্য মেলা অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদান করা হয়।

৭। যাবতীয় বিনোদনমূলক অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির এক দিনের মধ্যে তদমত্মক্রমে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুমিলস্না বরাবর প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর শর্ত সাপেক্ষে অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদান করা হয়।

৮। বিভিন্ন সভা/সেমিনার ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির এক দিনের মধ্যে তদমত্মক্রমে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুমিলস্না বরাবর প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন প্রাপ্তির পর শর্ত সাপেক্ষে অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রদান করা হয়।

৯। কারাগারে আটক বন্দীদের সাথে সাক্ষাতের জন্য অনুমতি প্রদানঃ

            বিজ্ঞ আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে আবেদন প্রাপ্তির পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১০। বিনা ময়না তদমেত্ম লাশ দাফনের অনুমতি প্রদানঃ

            আবেদন প্রাপ্তির পর পরীক্ষামেত্ম প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১১।      মহামান্য হাই কোর্টের বিভিন্ন আদেশ তামিলঃ

            আদেশ প্রাপ্তির সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১২। বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের আদেশ তামিলঃ

            আদেশ প্রাপ্তির সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১৩। বিজ্ঞ দেওয়ানী আদালতের ডিক্রী জারীর আদেশ তামিলঃ

            বিজ্ঞ আদালতের চাহিদাপত্র প্রাপ্তির পর ধার্য তারিখের পূর্বেই বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়।

১৪। বিভিন্ন জেলা হতে প্রাপ্ত প্রসেস (নোটিশ/সমন/ওয়ারেন্ট) তামিলঃ

            প্রসেস প্রাপ্তির সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১৫। বিভিন্ন আদালত হতে প্রাপ্ত সাক্ষীর প্রসেস (সমন/ওয়ারেন্ট) তামিলঃ

            প্রসেস প্রাপ্তির সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১৬। ময়না তদমেত্মর জন্য কবর থেকে লাশ উত্তোলন ও সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্ত্ততকালে উপস্থিত থাকার জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগঃ

          বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের আদেশ প্রাপ্তির সাথে সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

১৭। বিজ্ঞ পিপি, স্পেশাল পিপি, অতিরিক্ত পিপি ও এপিপিগণের ভাতাদি প্রদানঃ

            বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে বিল দাখিলের পর বিধি অনুসরণপূর্বক চেক প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়।

১৮। ছাপাখানার ঘোষণাপত্র প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির সাথে সাথে সংশিস্নষ্ট সংস্থাসমূহে তদমেত্মর জন্য প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম ঘোষণাপত্র প্রদান করা হয়।

১৯। পত্রিকার ঘোষণাপত্র প্রদানঃ

আবেদন প্রাপ্তির সাথে সাথে তদমেত্মর জন্য পুলিশ সুপার, জেলা বিশেষ শাখা, কুমিলস্না বরাবর এবং ছাড়পত্রের জন্য চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর, ঢাকা বরাবর প্রেরণ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন ও ছাড়পত্র পাওয়ার পর পরীক্ষামেত্ম ঘোষণাপত্র প্রদান করা হয়।

২০। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ :

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি সংক্রামত্ম যে-কোন সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগসহ অন্যান্য আইনানুগ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। এছাড়া যে-কোন সংস্থার চাহিদার প্রেক্ষেতে আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

 

২১। কুমিলস্না কেন্দ্রীয় কারাগারের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনাঃ

কুমিলস্না কেন্দ্রীয় কারাগারে মাসিক ও ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠান, বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক মাসিক পরিদর্শন এবং অন্যান্য কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

২২। কুমিলস্না কেন্দ্রীয় কারাগারের বন্দী মুক্তি প্রদান কার্যক্রমঃ

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারীকৃত পরিপত্রের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা কমিটির সিদ্ধামত্ম মোতাবেক বন্দী মুক্তি প্রদানের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রসত্মাব প্রেরণ করা হয়। প্রসত্মাব অনুমোদনের পর পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।

 

২৩। পাবলিক পরীক্ষাসমূহ পরিচালনাঃ

বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে ও নকলমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠানের জন্য পরীক্ষাকেন্দ্রে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়।

২৪। মোবাইল কোর্ট পরিচালনাঃ

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক মোবাইল কোর্ট আইন, ২০০৯-এর তফসীলভূক্ত প্রায় সকল আইনের আওতায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণ প্রমাপ অনুযায়ী মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে এ কার্যালয়ে প্রতিবেদন প্রেরণ করেন এবং এ কার্যালয়ের  বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ কর্তৃক প্রায় প্রতিদিন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন সংস্থার চাহিদার প্রেক্ষেতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও অন্যান্য মন্ত্রণালয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা সংক্রামত্ম মাসিক প্রতিবেদন নিয়মিত প্রেরণ করা হয়।

 

২৫। মাদকদ্রব্য ও চোরাচালান নিয়ন্ত্রণে টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালনাঃ

মাদকদ্রব্য ও চোরাচালান নিয়ন্ত্রণে প্রতিদিন টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালনার জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়। এছাড়া প্রত্যাশী সংস্থার চাহিদার প্রেক্ষেতেও টাস্কফোর্স অভিযান পরিচালনার জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়।

২৬।     ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারীঃ

যে-কোন সংস্থার চাহিদার প্রেক্ষেতে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কুমিলস্না মহানগর এলাকায় বিজ্ঞ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারী করা হয়। কুমিলস্না মহানগর এলাকার বাহিরে সংশিস্নষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণকে ফৌজদারী কার্যবিধির ১৪৪ ধারা জারীর নির্দেশ প্রদান করা হয়।

২৭। নির্বাহী তদমত্ম সম্পন্নকরণঃ

চাহিদা প্রাপ্তির সাথে সাথে তদমত্মক্রমে প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়। তদমত্ম প্রতিবেদন পাওয়ার পর তা কমিশনার, চট্টগ্রাম বিভাগ, চট্টগ্রাম মহোদয়ের কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়।

২৮। জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচন পরিচালনাঃ

জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনসমূহ সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষি্য আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করাসহ অন্যান্য সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

২৯। সড়ক ও মহাসড়কের যানজট নিয়ন্ত্রণঃ

জেলার সকল জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়ক, স্থানীয় সড়ক, বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড, হাট-বাজার এবং জেলা ও উপজেলা শহরের যানজট নিয়ন্ত্রণে সভা অনুষ্ঠান ও বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়ে থাকে।

৩০। রাজনৈতিক কারণে দায়েরকৃত হয়রানীমূলক মামলা প্রত্যাহারঃ

            এ বিষয়ে সরকারি সিদ্ধামত্ম মোতাবেক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়।


শাখার নামঃ
নাগরিক সেবা
0
0

দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার পদবীঃ জেনারেল সাটির্ফিকেট অফিসার

 

ক্রঃ নং

সেবার নাম

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের সময়সীমা

নিদিষ্ট সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান।

০১।

যাবতীয় সরকারি / আধাসরকারী/ স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা/ প্রতিষ্ঠান সমূহের অনাদায়ী অর্থ আদায়।

সরকরী দাবী আদায় আইন ১৯১৩ সনের বিধান মোতাবেক অর্থ আদায় করা হয়।

আদালতের সন্তুষ্টির সাপেক্ষ্যে যত দ্রুত সম্ভব

মামলা দায়েরের সময় আইনগত কোন ত্রুটি পরিলক্ষিত হলে সার্টিফিকেট অফিসর দাবী সংশোধনের সুযোগ দিয়ে থাকেন।

অভিযোগের বিষয়ে প্রয়েজনীয় ব্যস্থা গ্রহণ করা হয়।

0

গোপনীয় শাখা

0

শাখার নামঃরাজস্ব , রেভিনিউ মুন্সীখানা (আরএম)
নাগরিক সেবা

 

 রাজস্ব মুন্সিখানা শাখা কর্তৃক সিটিজেন চার্টারঃ

ক্র/নং

সেবার নাম/ধরণ

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

মন্তব্য/সময়সীমা

০১।

দেওয়ানী মামলা সংক্রান্ত ও

মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের সিভিল রিভিশন/

রীট মামলা সংক্রান্ত।

১)সরকার পক্ষে দেওয়ানী মামলা পরিচালনা সংক্রান্ত বিষয়াদি।

২)সরকার পক্ষে দেওয়ানী মামলার দফাওয়ারী প্রতিবেদন প্রেরণ সংক্রান্ত বিষয়াদি।

৩।সরকার পক্ষে দেওয়ানী আপিল মামলা দায়ের সংক্রান্ত বিষয়াদি।

৪) সরকারি কৌসুলি/অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলি/সহযোগী সরকারি কৌসুলি নিয়োগ ও ভাতা প্রদান সংক্রান্ত বিষয়াদি।

৫)  অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব)বরাবরে দায়েরকৃত আপিল মামলা গ্রহণ,শুনানী ও নিষ্পত্তিকরণ সংক্রান্ত বিষয়াদি।

৬) দেওয়ানী আপিল মোকদ্দমায় সরকারের বিপক্ষে রায় ঘোষিত হলে বিজ্ঞ সরকারি কৌসুলি কর্তৃক মামলার রায়ের কপি ও অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র সংগ্রহ পূবক সিভিল রিভিশন মামলা দায়েরের জন্য বিজ্ঞ সলিসিটর মহোদয়ের নিকট প্রেরণ।

৭) মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের সিভিল রিভিশন/রিট  পিটিশন মামলা সংক্রান্ত বিষয়াদি।

সংশ্লিষ্ট উপজেলা হতে মামলার আরজি  ভিত্তিক দফাওয়ারী জবাব ও সংশ্লিষ্ট কাগজাদি প্রাপ্তির ০৩ দিনের মধ্যে বিজ্ঞ সরকারি কৌসুলি/বিজ্ঞ উপ সলিসিটর মহোদয়ের নিকট প্রেরণ।

 

 

 

 

 

 

 

০২।

স্ট্যাম্প ভেন্ডার

শিপ লাইসেন্স সংক্রান্ত

১) আবেদনপত্র জমা হবার ৩ কর্মদিবসের মধ্যে উপস্থাপন।

২) সংশ্লিষ্ট দপ্তর সমূহ থেকে প্রতিবেদন প্রাপ্তির ০৩ কায্যদিবসের মধ্যে উপস্থাপন।

৩)  আবেদনপত্র নাকচ হলে আবেদনকারীকে (উপস্থিত মতে) অবহিতকরণ।

৪)     লাইসেন্স ফি ১৫০০ টাকা

     # কোর্ট ফি এর জন্য ৭৫০ টাকা

       খাত = ১/২১৪২/০০০০/১৮১১

     # স্ট্যাম্প  এর জন্য ৭৫০ টাকা

       খাত =  ১/১১০১/০০২০/১৩০১

     # সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা কুমিল্লায় চালানের 

       মাধ্যমে জমা দিতে হবে।  

৫)     লাইসেন্স নবায়ন ফি = ১০০০ টাকা

     # কোর্ট ফি এর জন্য ৫০০ টাকা

       খাত = ১/ ২১৪২/০০০০/ ১৮১১

     #   স্ট্যাম্প  এর জন্য ৫০০ টাকা

          খাত =  ১/ ১১০১/ ০০২০/ ১৩০১

     #   সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা  

          কুমিল্লায় চালানের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

আবেদনপত্র মঞ্জুর হলে এবং তদন্ত প্রতিবেদন লাইসেন্স প্রদানের স্বপক্ষে হলে  ৩ কায্যদিবসের মধ্যে লাইসেন্স ইস্যুর ব্যবস্থা গ্রহণ ।

 

০৩।

আমমোক্তার

নামা

 রি- স্ট্যাম্পিং  সংক্রান্ত

১) আমমোক্তার নামা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কতৃক সিল স্বাক্ষরের ৯০ দিনের মধ্যে  জেলা প্রশাসক মহোদয়ের নিকট দাখিল ।

২)  আবেদনপত্র ও আমমোক্তারনামার মূল কাগজপত্র ৩ কায্যদিবসের মধ্যে উপস্থাপন।

৩)  পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং সংশ্লিষ্ট  উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্তৃক যাচাইয়ের জন্য ১৫ কায্যদিবসধায্ক্রমে প্রেরণ।

৪)  যাচাই প্রতিবেদন প্রাপ্তির ৩ কর্মদিবসের মধ্যে উপস্থাপন।

 

আঠালো স্ট্যাম্প ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মহোদয়ের স্বাক্ষরের অব্যবহিত পরে চাহিবামাত্র সরবরাহের ব্যবস্থা।

০৪।

বিবাহিত/

অবিবাহিত

 সনদ  প্রদান।

 বিবাহিত/ অবিবাহিত সনদ প্রাপ্তির  জন্য কোড নং ১/২২০১/০০০১/২৬৮১ খাতে নির্ধারিত ফি  ৭,৫০/- টাকা ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে জমাদানপূর্বক আবেদনের প্রাপ্তির ১ দিনের মধ্যে  পুলিশ সুপার জেলা বিশেষ শাখা কুমিল্লার নিকট তদন্তক্রমে প্রতিবেদনের জন্য প্রেরণ করা হয় ।

পুলিশ সুপার জেলা বিশেষ শাখা, কুমিল্লা হতে প্রতিবেদন প্রাপ্তির ০২ দিনের মধ্যে সনদ প্রদান করা হয়।

০৫।

অবমূল্যায়ন মামলা সংক্রান্ত

১) আবেদনকারী সংশ্লিষ্ট অফিস সহকারীর  সাথে যোগাযোগ করে টাকার পরিমান ও চালানের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট হেড এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে কোন ব্যাংকের কত নং হিসাবে জমা দিতে হবে তা জেনে নিবেন।

 

  অফিস সহকারী টাকা জমা দেয়া সংক্রান্ত চালান/জমা রশিদ প্রাপ্তির ০১ দিনের মধ্যে  উপস্থাপন করবেন।

০৬।

বিনিময় মামলা সংক্রান্ত

বিনিময় মামলা সংক্রান্ত বিষয়গুলো যাচাই বাছাই ও পরীক্ষা-নিরীক্ষান্তে উপস্থাপন করা ।

 


শাখার নামঃরাজস্ব
নাগরিক সেবা
0

শাখার নামঃরাজস্ব , রেকর্ডরুম
নাগরিক সেবা

 

ক্রঃ নং

সেবার নাম

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের সময়সীমা

নির্দিষ্ট সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান

০১।

সকল প্রকার রেকর্ড সংক্ষণ ও বিনষ্ট করণ

সকল প্রকার তথা এসএ সিএস ও বিএস রেকর্ড সংরক্ষণ করা হয় এবং জেলা প্রশাসক মহোদয়ের অনুমোদন প্রাপ্ত কমিটির মাধ্যমে বিনষ্ট যোগ্য কাগজপত্র বিনষ্ট করা হয়।

সংশি­ষ্ট কমিটি কর্তৃক নির্ধারিত তারিখ ও সময়

-------------

০২

সকল প্রকার রেকর্ড ও সার্টিফাইড কপি সরবরাহ

জরুরী আবেদনের ক্ষেত্রে ১৬.০০ টাকার এবং সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে ৮.০০ টাকার কোর্ট ফি দিয়ে দরখাস্ত করতে হয় এবং প্রতি খতিয়ান/ ফলিওর জন্য ২ টাকা কোর্ট ফি দিয়ে দরখাস্ত করতে হবে।

সরকারী বিধি মোতাবেক জরুরী আবেদনের ক্ষেত্রে ০৭ (সাত) কার্য দিবস এবং সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে ১৫(পনের) কার্য দিবস সময়ে সরবরাহ করা হয়। রবিবার হতে বুধবার পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ৯.৩০ হতে ১২.৩০ পর্যন্ত দরখাস্ত গ্রহণ ও খতিয়ান সরবরাহ করা হয়।

ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেকর্ডরুম এর সাথে যোগাযোগ করার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়।

০৩

মৌজা ম্যাপ

সাধারণ আবেদনের ক্ষেত্রে ৫.০০ টাকা কোর্ট ফি দিয়ে দরখাস্ত করতে হবে।

মৌজা ম্যাপ সরবরাহের ক্ষেত্রে ৩৫০.০০ টাকা চালানের মাধ্যমে ব্যাংক এ জমা চালান প্রাপ্তির ৭ দিনের মধ্যে সরবরাহ করা হয়।


শাখার নামঃসার্বিক , সাধারণ
নাগরিক সেবা

 

সাধারণ শাখার সিটিজেন চার্টারঃ

 

ক্রঃ/নং-

সেবার ধরণ

সেবা প্রদানের সময়কাল

মমত্মব্য

০১।

কেন্দ্রীয় পত্র গ্রহণ ও বিতরণ

২ দিন

জেলা প্রশাসক মহোদয়ের স্বাক্ষর সাপেক্ষে

০২।

কেন্দ্রীয় পত্র প্রেরণ

১ দিন

 

০৩।

এনজিও নিবন্ধন সংক্রামত্ম প্রতিবেদন প্রেরণ

৩০ দিন (তদমত্ম সাপেক্ষে)

সংশিস্নষ্ট মন্ত্রণালয়ের নিদের্শনা মোতাবেক

০৪।

এনজিও প্রত্যয়ন পত্র প্রেরণ

৩০ দিন (তদমত্ম সাপেক্ষে)

 

০৫।

সার ও বীজ সংক্রামত্ম

অনধিক ৭ দিন

 

০৬।

কৃষি পুনর্বাসন সংক্রামত্ম

মন্ত্রণালয়ের নিদের্শনা  ও অর্থ বরাদ্দ অনুযায়ী

 

০৭।

স’ মিল/রাইস মিল এর লাইসেন্স প্রদান সংক্রামত্ম

তদমত্ম সাপেক্ষে

 

০৮।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক

মন্ত্রণালয়ের নিদের্শনা  ও অর্থ বরাদ্দ অনুযায়ী

 

০৯।

হজ্জ বিষয়ক কার্যক্রম

মন্ত্রণালয় কর্তৃক নির্ধারিত সময়সীমা অনুযায়ী

 

১০।

নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠি ও বিশেষ এলাকা উন্নয়ন সহায়তা তহবিল(পার্বত্য চট্রগ্রাম ব্যতিত)

মন্ত্রণালয়ের নিদের্শনা  ও অর্থ বরাদ্দ অনুযায়ী

 

১১।

খাদ্য বিষয়ক

মন্ত্রণালয়ের নিদের্শনা  অনুযায়ী

 


শাখার নামঃসার্বিক , ফরমস ও স্টেশনারী
নাগরিক সেবা
0

শাখার নামঃসার্বিক
নাগরিক সেবা
0

শাখার নামঃরাজস্ব , এলএ
নাগরিক সেবা

 

ক্রঃ নং

সেবার নাম

সেবা প্রদানের পদ্ধতি

সেবা প্রদানের সময়সীমা

নিদিষ্ট সেবা প্রদানে ব্যর্থ হলে প্রতিকারের বিধান।

০১।

ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কার্যক্রম

প্রত্যাশী সংস্থার নিকট হতে এল এ ম্যানুয়েল এর বিধানমতে সংশ্লিষ্ট সকল কাগজাদি সঠিক ভাবে প্রাপ্ত হলে প্রস্তাবিত ভূমি এল, এ ম্যানুয়েল এর সকল বিধান অনুসরণ পূর্বক অধিগ্রহণ করে প্রত্যাশী সংস্থার নিকট দখল হস্তান্তর করা হয়।

স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুম দখল অধ্যাদেশ ১৯৮২ (অধ্যাদেশ নং ২, ১৯৮২) এবং স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ম্যানুয়েল ১৯৯৭ এর নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে

প্রস্তাবে কোন ভূল ত্রুটি থাকলে তা সংশোধনের জন্য প্রত্যাশী সংস্থার সহিত যোগাযোগ ক্রমে পূর্নাঙ্গ ও সঠিক প্রস্তাব প্রাপ্তি সাপেক্ষে অধিগ্রহণ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

০২

অধিগ্রহণে সংশ্লিষ্ট ভূমির মূল্য নির্ধারণ

প্রত্যাশী সংস্থার নিকট থেকে প্রস্তাব পাওয়ার পর প্রস্তাবিত ভূমির মূল্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রার হতে সংগ্রহ পূর্বক নির্ধারন করা হয়।

অধিগ্রহণ সংক্রান্ত সভায় তা উপস্থাপনের পর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

০৩

ক্ষতিপূরণ পরিশোধ

আবেদনকারী যথানিয়মে মালিকানা সংক্রান্ত সকল কাগজাদিসহ আবেদন করার পর তার আবেদন সঠিক পাওয়া গেলে নির্ধারিত ক্ষতিপুরনের টাকা পরিশোধ করা হয়।

কোন আপত্তি পাওয়া গেলে কিংবা স্বত্বের বিষয়ে কোন জটিলতার উদ্ভব হলে তা আইনানুগভাবে নিস্পত্তি হওয়ার পর ক্ষতিপূরনের টাকা পরিশোধ করা হয়।

০৪।

ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রমে অভিযোগ/ আপত্তি নিস্পত্তি করণ

ভূমি মালিকানা সংক্রান্ত কোন অভিযোগ থাকলে তা শুনানীর মাধ্যমে নিস্পত্তি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

চুড়ান্ত নিস্পত্তির পর।

আপত্তি পাওয়া গেলে কিংবা স্বত্বের বিষয়ে কোন জটিলতার উদ্ভব হলে তা আইনানুগভাবে নিস্পত্তি করা হয়।

অধিগ্রহণকৃত ভূমির ক্ষতিপুরণের টাকা পাওয়ার জন্য আবেদনের সাথে যে সকল কাগজাদি/ তথ্যাদি কাখিল করতে হবেঃ

এতদ্বারা কুমিল্লা জেলার আওতাভূক্ত অধিগ্রহণকৃত ভূমির মালিক/ স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিগণকে জানানো যাচ্ছে যে, ক্ষতিপুরনের টাকা ভূমি অধিগ্রহণ দখল শাখা হতে উত্তোলনের পূর্বে স্বত্ব প্রমানের লক্ষ্যে আবেদনের সাথে নিম্নবর্ণিত কাগজাদি/ তথ্যাদি জমা দিতে হবে।

১. এস, এ খতিযানের সহি মোহর যুক্ত অবিকল নকল।

২. নামজারী খতিয়ান (মূলকপি)

৩. তসদিককৃত খতিয়ানের/চলমান জরীপের মাঠ পর্চার কপি (মূল কপি)

৪. হাল সন পর্যন্ত ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের দাখিলা (মূল কপি)।

৫. বায়া দলিলসহ মূল দলিল/সার্টিফাইড কপি।

৬. মৃত ব্যক্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/ পৌর মেয়র কর্তৃক ওয়ারিশ সার্টিফিকেট (মূল কপি)

৭. সং&&শ্লষ্ট স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/ পৌর মেয়র কর্তৃক জাতীয়তা সার্টিফিকেট

৮. সংশ্লিষ্ট স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/ পৌর মেয়র কর্তৃক ক্ষমতা দাতা ও গ্রহীতাগনের প্রত্যেকের ০১(এক) কপি করে সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের সত্যায়িত ফটো।

৯. ১৫০/- টাকার নন জুডিশিয়াল ষ্ট্যাম্পের মধ্যে চেয়ারম্যান/ ওয়ার্ড কমিশনার এর সন্মূখে শরীকদের ব্যক্তিগত উপস্থিতিতে শরীকগণ কর্তক প্রতি পৃষ্ঠায় স্বাক্ষর। উল্লেখ্য যে, একক মালিক এর জন্য ক্ষমতাপত্র লাগবে না।

১০. ক্ষমতা দাতা ও গ্রহীতাগণকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি ও আমার সন্মূখে স্বাক্ষর করিয়াছে মর্মে স্থানীয় চেয়ারম্যান/ মেয়র ক্ষমতাপত্রের প্রতি পৃষ্ঠায় নামের সীলসহ প্রত্যায়ন প্রদান করিবেন।

১১. ক্ষতিপুরনের এল,এ চেক গ্রহণের সময় সনাক্তকরণের জন্য নামের সীলসহ মেয়র/ চেয়ারম্যান/ কাউন্সিলর/ গনমান্য ব্যক্তি সংগে আনতে হবে।

১২. জমির মালিক প্রবাসী হইলে ক্ষমতা গ্রহীতার বরাবরে সংশ্লিষ্ট দূতাবাসের মাধ্যমে আমমোক্তার নামা দাখিল করতে হবে এবং উক্ত আমমোক্তার নামাটি পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মাধ্যমে সরকারি ভাবে অত্র অফিসে প্রাপ্ত দিতে হবে।

১৩. চেক গ্রহণের পূর্বে ১৫০/- টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে অঙ্গীকারনামা দিতে হবে।

১৪. পারিবারিক সম্পত্তি আপোষ বন্টণনামার ক্ষেত্রে রেজিষ্টার্ড আপোষ বন্টণনাম। আবেদনের সাথে অত্র কার্যলয়ে সংরক্ষণের জন্য উপরে বর্ণিত কাগজপত্রাদি এর মূল কপির সাথে ফটোকপি দাখিল করতে হবে।


শাখার নামঃসার্বিক , আইসিটি শাখা
নাগরিক সেবা
0

সর্বমোট তথ্য: ২২